How to speak beautifully

tasnim / জানুয়ারী 19, 2021

সুন্দর করে কথা বলার কৌশল

শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে

নিজেকে অন্যের সামনে স্মার্টলি রিপ্রেজেন্ট করার জন্য নির্দ্বিধায় সুন্দর করে কথা বলার ভূমিকার শেষ নেই। আমরা সকলেই সুন্দর করে কথা বলে অন্যকে আকৃষ্ট করতে চাই,অন্যের মন জয় করতে চাই। সেটা হতে পারে নিজের পছন্দের ব্যক্তি, মনের মানুষ কিংবা অফিসের বস। নিজের মুখের কথা দিয়েই কিন্তু তাদেরকে নিজের প্রতি আকর্ষিত করতে হয়। কিন্তু আমরা অনেকেই দেখা যায়, বিভিন্ন কারণে তাদের সামনে ভাল করে কথা বলতে পারি না। যার কারণে আমাদেরকে নিয়ে তাদের মনে একটা বিরূপ ধারণা সৃষ্টি হয়। এই বিরূপ ধারণা সৃষ্টির ফলে তারা আমাদেরকে নিয়ে ভালো কিছু আশা করতে পারে না। আর তাই এরকম কঠিন অবস্থায় যাতে না পড়তে হয় সেজন্য সব সময় সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বলার অভ্যাস করতে হবে। আজকের আর্টিকেলটিতে আলোচনার বিষয় কিভাবে সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বলতে হয়। তো চলুন দেরী না করে শুরু করা যাক।

আত্মবিশ্বাস বজায় রেখে কথা বলুন

 

কোন বিষয়ে কথা বলার সময় নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস রাখাটা খুব জরুরী। আপনি কি নিয়ে কথা বলছেন তা যদি আপনার নিজেরই জানা না থাকে ঠিকমতো তাহলে আপনি অন্যকে কি জানাবেন কখনো কি ভেবে দেখেছেন? তাই কথা বলার সময় সঠিক যুক্তি মেনে চলুন এবং কি নিয়ে কথা বলছেন সেটা ভালোভাবে জেনে আত্মবিশ্বাসের সাথে সামনের মানুষটার সাথে কথা বলুন। আপনার আত্মবিশ্বাসও কিন্তু সামনের মানুষকে ইমপ্রেস করতে সক্ষম।

 

কোন তাড়াহুড়া করবেন না

 

ছোট বেলা থেকেই একটা কথা আমরা প্রায়ই শুনে এসেছি যে, তাড়াহুড়া করা শয়তানের কাজ। মূলত এই কথাটার অর্থ হচ্ছে তাড়াহুড়া করে কোন কিছুই ঠিকমতো করা যায় না। যে কোন ক্ষেত্রে তাড়াহুড়া করা বিরাট সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। একটা উদাহরন দিলে বুঝতে পারবেন, যেমন আপনি খাওয়ার সময় বেশ তাড়াহুড়া করছেন এবং হঠাৎ খাবার আপনার নাকে মুখে উঠে গেল। বিষয়টা খুবই ভয়াবহ তাই না? একইভাবে কথা বলার সময় যখন তাড়াহুড়া করবেন তখন আপনি কি বলছেন সেটা আপনি নিজেই যেমন ঠিকমত বুঝতে পারবেন না, তেমনি তাড়াহুড়া করার কারণে আপনার সামনের ব্যক্তিও বেশ বিরক্ত হবে এবং আপনার সাথে কথা বলতে আগ্রহ প্রকাশ করবে না। তাই তাড়াহুড়া করে কথা বলা থেকে বিরত থাকুন।

 

আপনার কথায় যাতে স্পষ্ট ও শুদ্ধ উচ্চারণ প্রকাশ পায়

 

আপনি যে কথাগুলো বলছেন চেষ্টা করুন সেগুলো একদম স্পষ্ট ভাবে উচ্চারণ করার এবং শুদ্ধ উচ্চারণ করার। কেননা আপনার অশুদ্ধ উচ্চারণ ও অস্পষ্ট ভাবে কথা বলার এক্সপ্রেশন আপনার সামনে মানুষের কাছে জঘন্য লাগতে পারে। এতে আপনার প্রতি তার ইম্প্রেশন এ খুবই বাজে প্রভাব ফেলবে। তাই একজন স্মার্ট মানুষ হিসেবে আপনার প্রথম কাজ হচ্ছে আপনি যাই বলেন না কেন আপনার মুখ দিয়ে যে শব্দ বা বাক্যই বেরোচ্ছে না কেন সেগুলো যাতে স্পষ্ট থাকে এবং উচ্চারণ শুদ্ধ থাকে। যাতে করে আপনি যাকে যেই কথাগুলো বলছেন তার কানে আপনার প্রতিটি কথা শ্রুতিমধুর হয়ে দাঁড়ায়।

 

কি বলছেন তা আগেই ঠিক করে নিন

 

কোন কিছু বলার আগে ঠিক করে নিন আপনি কি বলছেন। আপনার জন্য সবচেয়ে ভালো হবে কোন কথা দিয়ে শুরু করবেন এবং কোন কথা দিয়ে শেষ করবেন সেটা কথা বলার পূর্বে ঠিক করে রাখা। একজন মানুষ আপনার সাথে কথা বলতে আসছে, আর আপনি জানেনই না তার সাথে কি নিয়ে, কি ব্যাপারে, কখন, কোন প্রসঙ্গে কথা বলতে হবে, তবে সে আপনার কাছে সে কেনইবা আসলো? আপনার এই আচরণে তার তো আপনার প্রতি বিরক্ত হওয়ার কথা।
তাই চেষ্টা করুন মানুষের সাথে কথা বলার পূর্বে কি প্রসঙ্গে কথা বলবেন সেটা বিস্তারিত ঠিক করে রাখা।

 

মুদ্রাদোষ পরিত্যাগ করুন

 

বিভিন্ন মানুষের বিভিন্ন ধরনের মুদ্রাদোষ থেকে থাকে। এখানে মুদ্রাদোষ বলতে বিশেষ করে একই ধরনের শব্দ বারবার ব্যবহার করাকে বোঝাচ্ছে। প্রত্যেক মানুষই নির্দিষ্ট একটা বা কয়েকটা শব্দ বারবার ব্যবহার করতে পছন্দ করে। সত্যি বলতে ব্যাপারটা নিজের অজান্তেও মাঝে মাঝে হয়ে থাকে। আপনার যদি এ ধরনের মুদ্রাদোষ থেকে থাকে তবে আপনি সেটা পরিহার করুন। কারণ একই শব্দ বারবার শুনতে কার ভালো লাগে?

 

কথা ও ইমোশনের সাথে মিল রাখুন

 

আপনি কোন প্রসঙ্গে কথা বলছেন কি নিয়ে কথা বলছেন তার সাথে আপনার আবেগ মিল রেখে কথা বলুন। যেমন আপনি কাউকে প্রেমের প্রস্তাব দিতে যাচ্ছেন, এখন আপনি যদি মন মরা হয়ে তাকে বলেন “আমি তোমাকে ভালোবাসি” ব্যাপারটা কি তখন ভালো দাঁড়াবে? এতে তো যাকে প্রস্তাব দিচ্ছেন সে আরো ভাববে আপনি হয়তো কোনো শোক প্রকাশ করছেন। আপনি কিন্তু কোনো শোক প্রকাশ করছেন না। সুতরাং যেই টপিকে কথা বলছেন সেই টপিকের সাথে নিজের আবেগটাকে ধরে রেখে উভয়কে সমানতালে সামনের ব্যক্তির কাছে প্রকাশ করুন।

সুপ্রিয় পাঠক, এই ছিল আজকের আলোচনা। এই আর্টিকেলটিতে শুধুমাত্র সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বলার উপায়টুকুই বলে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এর বাস্তবায়নের দায়িত্ব কিন্তু আপনার হাতে। আপনি যদি উপরোক্ত পদক্ষেপগুলো নিজ দায়িত্বে বাস্তবায়ন করতে না পারেন, তবে সত্যিই কারো কিছু করার নেই। তাহলে আজ এই পর্যন্তই, ধন্যবাদ।

(Visited 449 times, 6 visits today)


শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে

One Comment

Comments are closed.