first-aid-for-choking

tasnim / জুলাই 25, 2020

হঠাৎ শ্বাসনালীতে খাবার ঢুকে গেলে কী করবেন?

শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে

কোনো কিছু খাওয়ার সময় অসচেতনতা বশত খাবার নাকে মুখে উঠে যেতে পারে। পানি বা তরল জাতীয় কিছু ঢুকে গেলে হয়তো কিছুক্ষন জ্বালা পোড়া করে পরবর্তীতে ঠিক হয়ে গেলেও যেতে পারে। কিন্তু কী হবে যদি খাবারের শক্ত কোনো কণা খাবার গিলতে গিয়ে অন্ননালীতে না প্রবেশ করে শ্বাসনালীতে ঢুকে যায় এবং ফুসফুসে বাতাস ঢোকার রাস্তা বন্ধ করে দেয়? তখন?

সাধারণত আমাদের নাসারন্ধ্র তথা নাক কাজ না করলেও সৃষ্টিকর্তার কৃপায় আমরা মুখ দিয়ে শ্বাস নিতে পারি। কিন্তু শ্বাসনালীতে খাবারের শক্ত কণা ভুল বশত ঢুকে গেলে অনেক চেষ্টা করেও ফুসফুসে বাতাস প্রবেশ করানো সম্ভব হবে না।
এরকম হলে অর্থাৎ শ্বাসনালীতে খাদ্যকণা ঢুকে ফুসফুসে বাতাস যাওয়ার রাস্তা আটকে দিলে (যদি বের করা সম্ভব না হয়) চার মিনিটের মাথায় একজন মানুষকে শ্বাসকষ্টের তীব্র যন্ত্রণা নিয়ে মারা যেতে হবে।

আর এভাবে অকালে শ্বাসরোধে যাতে মারা যেতে না হয় তাই শ্বাসনালী থেকে ঐ খাদ্য কণাটা বের করার জন্য হেমরিজে হেমলিক একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেন। তার নামানুসারে পদ্ধতিটির নাম হেমলিক পদ্ধতি বলা হয়।

পদ্ধতিটি সম্পর্কে অনেকেই জেনে থাকবেন। তবে যারা জানেন না, আশা করি আজকের এই লেখা থেকে বিষয়টি জেনে নিতে পারবেন।

পদ্ধতিটি হচ্ছে এরকম-

যখন কারও শ্বাসনালীতে খাবার কণা আটকে যাবে তখন থাকে তার পেছন থেকে আপনার জড়িয়ে ধরার মতো করে, আপনার দুহাত শক্ত করে লাগিয়ে তার নাভি বরার চার থেকে পাঁচ বার চাপ দিতে হবে।

অথবা তাকে চিৎ করে শুইয়ে দিয়ে তার কোমরে বসে একই কায়দায় তার নাভি মন্ডলে বার কয়েক চাপ দিতে হবে। এতে করে হয় কী, খাদ্যকণাটা ঢুকে যাওয়ার আগে ফুসফুসে যতটুকু বাতাস ছিলো ততটুকু বাতাস ওই শক্ত খাদ্য কণাকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়। ফলে খাদ্য কণা শ্বাসনালী থেকে বের হয়ে মুখের দিকে এসে পড়ে এবং সেখান থেকে খাবার কণাটা আঙুল দিয়ে টেনে বের করে নিতে পারেন।

বিষয়টা মোটেও জটিল না। ধরুন একটা খালি প্লাস্টিকের বোতলের উপর আপনি ঢাকনাটা খুলে এমনেই রেখে দিয়েছেন। এখন যদি বোতলটা সজোরে ধরে চাপ দেন তাহলে কী হবে? বোতলটা চুপসে যাবে, এবং ভেতরের বাতাস ওই খোলা ঢাকনা কণাটিকে ঠেলে বের করে দেবে। এটাই মূলত মানবদেহের সাথে করা হয়।
তবে কথা হচ্ছে ফুসফুসে চাপ প্রয়োগ করার কথা। কিন্তু ফুসফুস দুটো বক্ষপিঞ্জরের ভেতর সুরক্ষিত। তাই সেখানে চাপ দিয়ে তেমন একটা লাভ হবে না।
তাই পেটের নাভি বরাবর চাপ দিলে চাপটা মধ্যচ্ছদা পর্যন্ত পৌঁছায় এবং আটকে থাকা খাবার কণা ছিটকে বের হয়ে আসে।

তবে এক বছরের শিশুর ক্ষেত্রে ব্যাপারটা ভিন্ন। তাকে একহাতে তুলে নিয়ে উল্টো করে ধরে তার পিঠে চার থেকে পাঁচটি চাপড় দিলেই খাদ্যকণা বের হয়ে আসার কথা। তবে তাও যদি না হয়, তখন তার দু’স্তনের মাঝ বরাবর জায়গাটায় তিন আঙুল দিয়ে চাপ দিতে হবে। আশা করা যায় এতে খাদ্যকণা শ্বাসনালী থেকে বের হয়ে আসবে।

শেষে একটা কথাই বলবো, খাবার খাওয়ার সময় তেমন হাসাহাসি করা উচিৎ না। খাবার খেতে হলে শুধু খাবারের দিকেই মনোযোগ দেওয়া উচিত। যতটা সম্ভব খাবারের সময় কথা বলা, হাসাহাসি বা অন্য কাজ এড়িয়ে চলা উচিত। খাবারকে সম্মান করতে হবে এবং সবচেয়ে বড় কথা, সৃষ্টিকর্তার নাম নিয়ে খাবার শুরু করতে হবে। এতে করে খাবার সময় আপনি তার হেফাজতের আশ্রয়ে থাকবেন।
আজ এই পর্যন্তই। ভালো থাকুন।

(Visited 1,038 times, 32 visits today)


শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে