Antar Sarkar / জুলাই 11, 2020

আপনার ফেসবুক আইডি কিভাবে সুরক্ষিত রাখবেন?

শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে

ফেসবুক এখন নাগরিক জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গেছে। বন্ধুত্ব, সম্পর্ক, ব্যবসা-বাণিজ্য, সমাজসেবা, পড়ালেখা, বিনোদন এমনকি অনলাইন কেনাকাটাও এখন ফেসবুক নির্ভর হয়ে উঠেছে। আর এই ফেসবুক আমাদের অনেক ব্যাক্তিগত তথ্য, পারিবারিক তথ্য ও যোগাযোগের তথ্য ধারণ করে। তাই আমাদের প্রত্যেকের ফেসবুক অ্যাকাউন্টটিকে ক্লোনিং, হ্যাকিং এর মতো সমস্যা থেকে সুরক্ষিত রাখাটাও অতীব জরুরী। যে কয়েকটি বিষয় মেনে চললেই আমরা আমাদের ফেসবুক অ্যাকাউন্টটিকে সুরক্ষিত রাখতে পারি, সেই বিষয়গুলোই এখানে তুলে ধরার চেষ্টা করলাম –

  • একটি জটিল পাসওয়ার্ড তৈরি করুনঃ ফেসবুকে পাসওয়ার্ড তৈরি করা বা পরিবর্তন করার সময় কমপক্ষে ১৩ থেকে ১৪ অক্ষরের পাসওয়ার্ড দেবেন। পাসওয়ার্ড ইংরেজী বড় ও ছোট হাতের অক্ষর মিলিয়ে রাখবেন এবং পাসওয়ার্ডের শুরু, শেষ বা মাঝখানে যেকোন একটি সিম্বল বা চিহ্ন যোগ করবেন। এতে করে পাসওয়ার্ড কয়েকগুণ শক্তিশালী হয়। যেমনঃ [email protected]@BlOg – এই ধরণের পাসওয়ার্ড দিতে পারেন।
  • দুই স্তরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করুনঃ ফেসবুকের Settings> Security and login অপশনে গেলেই আপনি দেখতে পাবেন “Two-factor authentication” নামের একটি অপশন আছে। এই অপশনে আপনি একটি ভেরিফিকেশন কোড বা লগ-ইন অ্যাপ্রুভাল চালু করতে পারবেন। এখানে আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে  অপশনটি চালু করলে অন্য কোন ডিভাইস বা ব্রাউজার থেকে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করতে চাইলে প্রথমত পাসওয়ার্ড চাইবে আর দ্বিতীয়ত আপনার মোবাইল নাম্বারে একটি ভেরিফিকেশন কোড যাবে যেটা লগ-ইন করার সময় দিতে হবে অথবা অন্য কোন ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করা থাকলে সেখানে নোটিফিকেশন যাবে নতুন লগ-ইন কে অ্যাপ্রুভ করার জন্য। এটি চালু করলে অন্য কেউ সহজে এমনকি পাসওয়ার্ড জেনে থাকলেও আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ভেরিফিকেশন কোড ছাড়া প্রবেশ করতে পারবেনা। উল্লেখ্য যে, আপনি যে ব্রাউজার বা ডিভাইস থেকে ফেসবুক চালান, সেটিকে সেভ করে রাখলে আপনাকে বারবার ভেরিফিকেশন কোড দিতে হবেনা।
  • Log-in Alert সেট করুনঃ আপনি ফেসবুক এ  Settings > Security and log in> Setting up extra security  এ প্রবেশ করে Get alerts about unrecognized logins অপশনটি চালু করে রাখলে অন্য কেউ কোন ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করতে চাইলে আপনার কাছে নোটিফিকেশন চলে আসবে। আর এভাবে আপনি নিশ্চিত হতে পারবেন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে দ্বিতীয় কোন ব্যাক্তি লগ-ইন করছে কিনা।
  • প্রতি ৬ মাস পর পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করুনঃ প্রতি ৬ মাস পর নতুন একটি পাসওয়ার্ড দিন। এতে আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা অনেকাংশে কমে যায়। আপনার যদি ভুলে যাওয়ার ভয় থাকে তাহলে আপনি আপনার পূর্বের পাসওয়ার্ডটির সাথে মিলিয়ে পাসওয়ার্ড রাখতে পারেন। এছাড়া প্রতিবার পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করার পরে নতুন পাসওয়ার্ডটি আপনার ব্যাক্তিগত ডায়েরী বা মোবাইলের নোটপ্যাডে লিখে রাখতে পারেন।
  • “Remember Password” অপশন এড়িয়ে চলুনঃ আপনি যদি আপনার নিজের ডিভাইস ছাড়া অন্য কোন ডিভাইস থেকে লগ-ইন করেন তাহলে ব্রাউজারে Remember Password অপশন নামে একটি অপশন দেখাতে পারে সেখানে আপনি Not now বা No সিলেক্ট করবেন। এই অপশনটি চালু করলে আপনার ফেসবুক পাসওয়ার্ডটি ওই রাউজারে সংরক্ষিত হয়ে যাবে এবং পরবর্তীতে যে কেউ পাসওয়ার্ড ছাড়াই আপনার অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করতে পারবে।
  • লগ-ইন স্ট্যাটাস চেক করুনঃ আপনি যেসব ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্টে বর্তমানে লগ-ইন করা আছেন বা পূর্বে লগ-ইন করেছেন তা দেখার জন্য Settings> Security and login এ প্রবেশ করে Where You’re Logged In অপশনে গিয়ে দেখে নিতে পারেন। এতে আপনি নিশ্চিত হতে পারবেন অন্য কোন ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করা আছে কিনা বা করা হয়েছে কিনা কখনো। যদি দেখেন আপনার ডিভাইস ব্যাতীত অন্য কোন ডিভাইস থেকে লগ-ইন করা আছে তাহলে, “Log Out Of All Sessions” এ ক্লিক করে আপনি সব ডিভাইস থেকে লগ-আউট করে নিতে পারবেন। আর হ্যাঁ, অন্য কোন ডিভাইস থেকে কখনো যদি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করেন তাহলে লগ-আউট করে নিতে ভুলবেন না।
  • কোন ব্যাক্তি, পেজ, গ্রুপ বা ওয়েবসাইটে পাসওয়ার্ড দেয়া থেকে বিরত থাকাঃ কোন ব্যাক্তি, পেজ, গ্রুপ বা ওয়েবসাইট যদি আপনার কাছ থেকে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর পাসওয়ার্ড চেয়ে থাকে তবে কখনোই দেবেন না। কোন ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলেও অন্য একটি পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা ভালো নিরাপত্তার স্বার্থে।
  • অপরিচিত আইডি/ পেজ/ গ্রুপ থেকে বিরত থাকাঃ অপরিচিত কোন আইডি থেকে রিকুয়েস্ট পাঠালে সম্পূর্ণ নিশ্চিত না হয়ে অ্যাক্সেপ্ট করবেন না। কোন ব্যাক্তি, পেজ, সাইট বা গ্রুপ থেকে কোন লিঙ্কে ক্লিক করার অনুরোধ করলে এ সম্পর্কে সম্পূর্ণ নিশ্চিত না হয়ে লিঙ্কে প্রবেশ করবেন না। কোন আইডি সন্দেহজনক মনে হলে রিপোর্ট করুন বা ব্লক করে দিন। কোন পাবলিক গ্রুপ বা পেজে পোস্ট বা কমেন্ট করার আগে এগুলো বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য কিনা আগে দেখে নিন।

উপরোক্ত বিষয়গুলো নিশ্চিত করতে পারলে আপনি ফেসবুক হ্যাকিং, ক্লোনিং এসব বিষয় থেকে অনেকাংশে সুরক্ষিত থাকতে পারবেন আশা করা যায়। মনে রাখবেন, ডিজিটাল যুগে যে জিনিসটি আপনাকে সবচেয়ে বেশি বিপদে ফেলতে পারে সেটি হচ্ছে আপনার ইনফরমেশন বা তথ্য। তাই ফেসবুক বা অন্য কোন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার অ্যাকাউন্টটিকে সুরক্ষিত রাখা আপনার গুরু দায়িত্ব।

(Visited 73 times, 1 visits today)


শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে