tomato sauce

মাহবুবা হক / জুন 17, 2020

টমেটো সস রেসিপি (দীর্ঘ দিন সংরক্ষণ পদ্ধতি সহ)

শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

টমেটো সস  এমন এক খাবার যা আমরা সবাই কম বেশি ব্যবহার করি৷ বাজারে পাওয়া প্রায় সব গুলোতেই ভেজাল এবং স্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ নয়।তাই আপনারা ঘরে বসে  টমেটো সস বানাতে পারেন। তাছাড়া টমেটো এখন অনেক সস্তা। অনেকেরই টমেটো সস বানানোর কিছু দিন পর নষ্ট হয়ে যায়।এই  রেসিপিটি ফলো করলে আপনাদের টমেটো সস আর নষ্ট হবে না। অনেক দিন রেখে খেতে পারবেন। এখানে দুই কেজি পরিমানের বলেছি, আপনারা বেশী টমেটো নিলে পরিমান ও সে অনুপাতে বাড়িয়ে নিবেন।

টমেটো সস বানাতে যা যা লাগবে

উপকরণ:

১. টমেটো  ২ কেজি ,

২. চিনি  ৪ টেবিল চামচ স্বাদমত ,

৩. লবন স্বাদ মতো

৪. মরিচ ২ টেবিল চামচ

,৫. পেঁয়াজ  ২ টি মাঝারি সাইজের ,

৬. ভিনেগার –এক কাপ।

৭। রসুন বাটা অথবা কুচি-ইচ্ছে হলে দিতে পারেন

৮। দারুচিনি-ইচ্ছে

tomato sauce

 টমেটো সস  বানানোর প্রণালী:

১।প্রথমে টমেটোর বোটার অংশ ফেলে দিতে হবে  । তারপর টম্যাটো গুলো ভালো ভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিবেন। চার ভাগ করে কেটে নিন

২। তারপর টমেটোগুলো সিদ্ধ করতে হবে। এসময় চুলার তাপ মাঝারি রাখুন এবং ঢেকে দিন। পেঁয়াজ কুঁচি, রসুন, দারুচিনি এসময় টম্যাটোর সাথে দিয়ে নিবেন।

৩। ১টি বলক আসলে চুলা বন্ধ করে দিন এবং ঠাণ্ডা হতে দিন।

৪। একটি ছাঁকনির সাহায্যে টমেটো পেস্ট ছেঁকে নিতে হবে,তারপর চুলায় নন স্টিকি হাড়িতে জ্বাল দিতে হবে। তারপর একে একে এর মধ্যে চিনি  এবং     লবণ  দিয়ে  দিবেন। আপনারা টমেটোর টক বা মিস্টি বুঝে কম বেশি দিতে পারেন।

৬। মরিচ গুঁড়া  এবং ভিনেগার এক কাপ দিয়ে অনবরত নাড়তে হবে যেন কোথাও না লেগে যায় ।

৭। যখন নাড়তে নাড়তে টমেটো পেস্ট ঘন হয়ে যাবে তখন হাতের দুই আঙুলে নিলে যদি আঠার মতো দুই আঙুলেই লেগে থাকে তাহলে বুঝতে হবে হয়ে গেছে এবং চুলা বন্ধ করে দিন।

৮।  ঠাণ্ডা হলে বোতলে সংরক্ষণ করুন।

 

tomato sauce

 টমেটো সস  টিপস :

১. টমেটো বেশী টক হলে সিরকার পরিমান কমিয়ে দিন।

২.  এতে মরিচের পরিমাণ  নিজের পছন্দমত বাড়াতে বা কমাতে পারেন।

৩. সবসময় রেফ্রিজারেটরে রাখবেন, তাহলে সহজে নষ্ট হবেনা। গরম জায়গায় রাখবেন না

৪। পাকা টসটসে টম্যাটো নিন। নষ্ট, পোকায় আক্রান্ত টমেটো নিবেন না।

৫। আমার মা কে দেখতাম টম্যাটো সিদ্ধ করার সময়ে পাকা তেঁতুল দিয়ে নিতেন। আপনারাও দিতে পারেন। এতে অন্য রকম ফ্লেবার আসে। আর পেস্টের রঙ ও গাঢ় হয়।

৬। বড় বোতলে ফ্রিজারে রাখলে ছোট ছোট সসের বোতলে দৈনিক খাওয়ার জন্য আলাদা করে নিন। তাহলে পুরোটা আর নষ্ট হবেনা।

৭। এর কিছু অংশ আলাদা করে নিয়ে তাতে মরিচের গুড়ার পরিমান বাড়িয়ে দিয়ে চিলি সস  এর মত করে নিতে পারেন।  ঝাল খোর বন্ধুদের পরিবেশন করতে পারবেন।

৮। ভিন্ন স্বাদ পেতে এর সাথে, খাওয়ার আগে মেয়নেজ মিশান। অসাধারণ মজা লাগবে।

৯। পুদিনা অথবা ধনে বাটা মিশিয়ে একই সস নানা ভাবে খেতে পারেন।

সবাই বাসায় ট্রাই করে জানাবেন কেমন হল। আপনাদের মতামত আমরা সব সময় সম্মান করি।

(Visited 5,093 times, 82 visits today)


শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •